নির্বাচনের সংবাদ সংগ্রহে বিড়ম্বনায় সাংবাদিকরা - Sangbad Protidin | সংবাদ প্রতিদিন

ব্রেকিং নিউজ

সোমবার, ২৮ ডিসেম্বর, ২০২০

নির্বাচনের সংবাদ সংগ্রহে বিড়ম্বনায় সাংবাদিকরা

সংবাদ প্রতিদিন ডেস্ক:
নির্বাচন মানেই নতুন নেতৃত্ব, নতুন প্রতিনিধিত্ব। এই নির্বাচন নিয়ে সাধারণ মানুষের উদ্বেগ-উৎকণ্ঠারও শেষ নেই। জাতীয় কিংবা স্থানীয়- প্রতিটি নির্বাচনেই সাধারণ মানুষের চোখ থাকে সবশেষ তথ্যের দিকে। আর সেসব তথ্য দিয়ে সাধারণ মানুষের মনের খোরাক যোগান সাংবাদিকরা।

এ জন্য নির্বাচনের দিন খুব ব্যস্ততাপূর্ণ সময় কাটে সাংবাদিকদের। নির্বাচনী এলাকার এক প্রান্ত থেকে আরেক প্রান্তে ছুটে চলেন তারা। খুঁজে বের করেন সবশেষ তথ্য। কর্মরত নিজ নিজ গণমাধ্যমে প্রকাশ করে এসব তথ্য খুব অল্প সময়ে পৌঁছে দেন সবার মাঝে।

সাংবাদিকদের নির্বাচনের তথ্য সংগ্রহের প্রধান বাহন মোটরসাইকেল। বিশেষ করে মফস্বল সাংবাদিকদের জন্য এ বাহন অন্যতম ভূমিকা রাখে। কিন্তু চলমান পৌরসভা নির্বাচনের বিশেষ পদ্ধতিতে সাংবাদিকদের মোটরসাইকেল চলাচলও নিষিদ্ধ করেছে নির্বাচন কমিশন। এতে বিপাকে পড়েছেন সাংবাদকর্মীরা। যথাযথ সময়ে সবশেষ তথ্য গণমাধ্যমে প্রকাশে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হয়েছে এতে।

এ বিষয়ে বরগুনার বেতাগী পৌরসভা নির্বাচনে দায়িত্ব পালনরত প্রথম আলোর সাংবাদিক মোহাম্মদ রফিক বলেন, মোটরসাইকেল থাকলে নির্বাচনী এলাকার এক স্থান থেকে অন্য স্থানে দ্রুত যাতায়াত করা যায়। ফলে দ্রুত সংবাদও প্রকাশ করা যায়। কিন্তু এবারের এই নির্বাচনে মোটরসাইকেল নিষিদ্ধ করা হয়েছে। এর ফলে আমিসহ আমার অন্য সহকর্মীরাও বিপাকে পড়েছেন।

যমুনা টেলিভিশনের বরগুনা প্রতিনিধি ফেরদৌস খান ইমন বলেন, সব তথ্য সবার আগে প্রকাশের বাধ্যবাধকতা রয়েছে আমাদের। কিন্তু মোটরসাইকেল নিষিদ্ধ করায় আমার দায়িত্ব যথাযথ ভাবে পালন করতে পারছি না।

একাত্তর টেলিভিশনের বরগুনা প্রতিনিধি ইমরান হোসাইন বলেন, আমার একার একটি মাইক্রোবাস বা প্রাইভেট কার ব্যবহারের সুযোগ নেই। তাই একটি মাইক্রোতে করে আমিসহ সাতজন সাংবাদিক চলাফেরা করছি। এতে করোনার জন্য যেমন স্বাস্থ্য ঝুঁকি রয়েছে, তেমনি নিজের পরিকল্পনা অনুযায়ী কাজ করতে পারছি না।

বরগুনা প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ও চ্যানেল টোয়েন্টিফোরের বরগুনা প্রতিনিধি আবু জাফর মো. সালেহ বলেন, কোনো ঘটনা ঘটার পর সময় যত অতিবাহিত হয়, প্রকৃত তথ্য উদঘাটনে তত বিড়ম্বনায় পড়তে হয়। নির্বাচনকালীন এই সাংবাদিকতায় মোটরসাইকেল নিষিদ্ধ করায় আমরা এই বিড়ম্বনায় পড়েছি। আমাদের ভোগান্তিও বেড়েছে।

তিনি আরও বলেন, মফস্বল সাংবাদিকদের ব্যক্তিগতভাবে মাইক্রোবাস বা প্রাইভেটকার ব্যবহারের সক্ষমতা নেই। তাই মোটরসাইকেল নিষিদ্ধ করায় যথাযথভাবে আমরা নির্বাচনকালীন দায়িত্ব পালন করতে পারছি না।

বরগুনা জেলা টেলিভিশন সাংবাদিক ফোরামের সভাপতি সোহেল হাফিজ বলেন, যুগোপযোগী পদ্ধতিতে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হলেও সাংবাদিকদের সংবাদ সংগ্রহের ক্ষেত্রে এর মারাত্মক ব্যত্যয় ঘটেছে মোটরসাইকেল নিষিদ্ধ করার মাধ্যমে।

তাই পরবর্তী নির্বাচনে সাংবাদিকদের মোটরসাইকেল চলাচল পুনর্বহাল রাখার অনুরোধ জানান তিনি।

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন