চলন্ত বাসে ধর্ষণচেষ্টা: গ্রেপ্তার নেই, তরুণীকে ওসিসিতে স্থানান্তর - Sangbad Protidin | সংবাদ প্রতিদিন

ব্রেকিং নিউজ

রবিবার, ২৭ ডিসেম্বর, ২০২০

চলন্ত বাসে ধর্ষণচেষ্টা: গ্রেপ্তার নেই, তরুণীকে ওসিসিতে স্থানান্তর

সংবাদ প্রতিদিন ডেস্ক:
সুনামগঞ্জের দিরাইয়ে বাসে কলেজছাত্রীকে ধর্ষণচেষ্টার মামলায় এখন পর্যন্ত গ্রেপ্তার হয়নি জড়িত বা সন্দেহভাজন কেউ। তবে এ ঘটনায় বাসটিকে জব্দ করেছে পুলিশ।

শনিবার রাতে ওই কলেজছাত্রীর বাবা দিরাই থানায় অজ্ঞাতনামা তিন জনকে আসামি করে মামলা করে। তবে রোববার দুপুর পর্যন্ত কাউকেই গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ।

এদিকে, আক্রান্ত তরুণীকে রোববার (২৭ ডিসেম্বর) ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ানস্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে (ওসিসি) স্থানান্তর করা হয়েছে।

এ ঘটনায় জড়িত ব্যক্তিদের অল্প সময়ের মধ্যে আইনের আওতায় নিয়ে আসা হবে বলে জানিয়েছেন সুনামগঞ্জ জেলার পুলিশ সুপার (এসপি) মো. মিজানুর রহমান।

তিনি বলেন, ‘গতকাল অনাকাঙ্ক্ষিত একটি ঘটনা ঘটেছে। মামলা করার আগেই আমরা কাজ শুরু করি। আগামীকাল দিরাই পৌরসভা নির্বাচন। তারপরও আমরা কাজ করে যাচ্ছি। আশা করছি অল্প সময়ের মধ্যে আসামিদের গ্রেপ্তার করা হবে।’

সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের উপ পরিচালক ডা. হিমাংশু লাল রায় বলেন, মেয়েটি হাতে ও মাথায় আঘাত পেয়েছে। তবে আঘাত তেমন গুরুতর নয়। তাকে আজ ওসিসি সেন্টারে ভর্তি করা হয়েছে। এরআগে তার মাথার সিটিস্ক্যান করা হয়েছে। সেখানে মারাত্মক কিছু পাওয়া যায়নি।

মেয়েটির সাথে সকালে কথা বলেছেন জানিয়ে তিনি বলেন, বুদ্ধিমত্তা ও সহাসীকতার কারণে মেয়েটি রক্ষা পেয়েছে। মেয়েটি জানিয়েছে, বাসের ড্রাইভার তার চুল ও হাত ধরে যখন টেনে ধরেছিলেন তখনই সে বুদ্ধি করে জানালা দিয়ে লাফ দেয়।

উপ পরিচারক বলেন, আমার খুব ভালো লেগেছে মেয়েটি এখনও মানসিকভাবে ভেঙে পড়েনি। সে মানসিকভাবে শক্ত আছে।

মেয়েটির মানসিক কাউন্সিলং ও নিরাপত্তার জন্য তাকে ওসিসিতে পাঠানো হয়েছে বলে জানান তিনি।

এদিকে, এ ঘটনায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন স্থানীয়রা। তাদের এক জন দিরাই পৌর শহরের বাসিন্দা শেখ আলী হোসেন।

তিনি বলেন, ‘দিরাই উপজেলায় এমন ঘটনা প্রথম। একটি মেয়ে যদি নিরাপদে বাসে চলাচল করতে না পারে তাহলে কীভাবে হবে? ঘটনায় জড়িতদের দ্রুত গ্রেপ্তার করে শাস্তি দেয়া হোক।’

সুনামগঞ্জের জেলা প্রশাসক (ডিসি) আব্দুল আহাদ বলেন, ‘ভিকটিমের সার্বক্ষণিক খোঁজখবর আমরা রাখছি।’

তিনি আরও জানান, এমন ঘটনা যেন আর না ঘটে, সে জন্য আরও কঠোর অবস্থান নেয়া হবে।

কলেজছাত্রীর বাবার ভাষ্য, শনিবার সন্ধ্যায় সিলেট থেকে ছেড়ে আসা ফাহাদ অ্যান্ড মাইশা পরিবহনের একটি বাসে দিরাই যাচ্ছিল ওই কলেজছাত্রী। পৌরসভার সুজানগর এলাকায় তিনি ছাড়া বাকি যাত্রীরা নেমে গেলে বাস ফাঁকা হয়ে যায়। এ সময় বাসটির চালক ও হেলপার তাকে উত্ত্যক্ত করতে শুরু করে। এক পর্যায়ে দুই জন ধর্ষণের চেষ্টা চালালে আত্মরক্ষার্থে চলন্ত বাস থেকে লাফ দেন কলেজছাত্রী। এতে সড়কের পাশে পড়ে আহত হন তিনি।

পরে স্থানীয়রা আহত অবস্থায় দিরাই হাসপাতালে নেন ওই ছাত্রীকে। সেখানে চিকিৎসক তাকে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠান। শনিবার মধ্যরাতে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করেন স্বজনরা।

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন