কমলগঞ্জে স্বেচ্ছাশ্রমে ২ কিলোমিটার রাস্তা সংস্কার করেছেন গ্রামবাসী - Sangbad Protidin | সংবাদ প্রতিদিন

ব্রেকিং নিউজ

শনিবার, ১৪ নভেম্বর, ২০২০

কমলগঞ্জে স্বেচ্ছাশ্রমে ২ কিলোমিটার রাস্তা সংস্কার করেছেন গ্রামবাসী

সংবাদ প্রতিদিন ডেস্ক:
মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে সমাজসেবায় উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেন শুকুর উল্লাগাঁও গ্রামের বাসিন্দারা। গ্রামবাসী নিজেদের উদ্যোগে স্বেচ্ছাশ্রমে প্রায় ২ কিলোমিটার রাস্তা সংস্কার করেছেন।

জানা যায়, উপজেলার আদমপুর ও মাধবপুর ইউনিয়নের মধ্যে সংযোগ রক্ষাকারী জনগুরুত্বপূর্ন সড়ক হচ্ছে ঘোড়ামারা-শুকুর উল্লাহগাঁও সড়ক। এ সড়ক দিয়ে হাজার হাজার মানুষ যাতায়াত করেন। সড়কে ধলাই নদীর উপর বিদ্যমান ব্রিজটির নির্মাণ কাজ সমাপ্ত হওয়ার ৪ বছর আগে প্রায় ৪ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মাণ করা হয় ৯৬ মিটার আরসিসি পিএসসি গার্ডার ব্রিজটি। প্রায় ৪ বছর অতিক্রম হলেও অদ্যাবধি প্রতিশ্রুতিটি আলোর মুখ দেখেনি। ফলে গ্রামীণ কাঁচা সড়কটিতে কোন ধরনের উন্নয়নমূলক কাজ না হওয়ায় চরম দুর্ভোগে পড়েছেন সড়কে যাতায়াতকারী ২ ইউনিয়নে বসবাসকারী লোকজন সহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষজন।

স্থানীয় এলাকাবাসী জানান, এলাকার লক্ষাধিক কৃষক তাদের কৃষিপণ্য নিয়ে পড়েন চরম বিপাকে। স্কুল-কলেজ ও মাদ্রাসাগামী শিক্ষার্থীরাও এতদিন এই রাস্তায় দুর্ভোগ নিয়ে যাতায়াত করেছে।

স্থানীয় মুরুব্বী জয়নাল আবেদীন বলেন, ২ কিলোমিটার রাস্তা দীর্ঘদিন ধরে সংস্কারের অভাবে চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়েছিল। দীর্ঘদিন ধরে সরকারিভাবে রাস্তাটির কোন উন্নয়ন কাজ করেনি। তাই রাস্তাটিতে স্বাভাবিক চলাচল অব্যাহত রাখতে মেরামতের উদ্যোগ নিয়েছি। ওই রাস্তাটি দিয়ে এখানকার ১০টি গ্রামের মানুষ নিত্যদিন চলাচল করে। তাদের দুর্ভোগ দেখে সম্পূর্ণ মানবিক দিক বিবেচনা করে আমরা রাস্তাটি একটু সচল করেছি। এই রাস্তাটি জরুরী ভিত্তিতে পাকা করণ আবশ্যক।

স্থানীয় ইউপি সদস্য বাবুল কুমার সিংহ জানান, মৌলভীবাজার এলজিইডিকে বিষয়টি জানানো হয়েছে। এলজিইডি অফিসের লোকজন এসে রাস্তাটি ৩ বার মেপে নিয়ে যায়। কিন্তু গত ৪ বছরেও কোনো উন্নয়নমূলক কাজ হচ্ছে না।

মাধবপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান পুষ্প কমার কানু বলেন, ইউনিয়ন পরিষদ সংলগ্ন রাস্তা ও শুকুর উল্লাগাঁও গ্রামের রাস্তা পাকাকরণের জন্য আবেদন করেছি। তবে শুকুর উল্লাগাঁও গ্রামের রাস্তা বড় ধরনের যানবাহন চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। এ রাস্তাটি পাকাকরণ ও সংস্কারে বরাদ্দ না থাকায় সরকারিভাবেও সংস্কার করা সম্ভব হচ্ছে না।

কমলগঞ্জের লেখক-গবেষক আহমদ সিরাজ রাস্তাটি আমি সরেজমিনে প্রত্যক্ষ করে বলেন, অসংখ্য মানুষের যাতায়াতের একমাত্র রাস্তাটি জরুরী ভিত্তিতে সংস্কার বা পাকাকরণের দাবিটি ন্যায্য।

কমলগঞ্জ উপজেলা এলজিইডি’র উপ সহকারী প্রকৌশলী মামুন ভূঁইয়া বলেন, আদমপুর ও মাধবপুর ইউনিয়নের মধ্যে সংযোগ রক্ষাকারী জনগুরুত্বপূর্ন সড়ক হচ্ছে ঘোড়ামারা-শুকুর উল্লাগাঁও সড়ক। এ সড়কটিসহ উপজেলার অন্যান্য রাস্তাঘাটের তালিকা মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। কিন্তু এখনও পর্যাপ্ত বরাদ্দ পাওয়া যায়নি।

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন