সিলেটে পর্যটকদের নেই করোনার ভয়! - Sangbad Protidin | সংবাদ প্রতিদিন

ব্রেকিং নিউজ

রবিবার, ২০ সেপ্টেম্বর, ২০২০

সিলেটে পর্যটকদের নেই করোনার ভয়!

সংবাদ প্রতিদিন ডেস্ক:
করোনার ভয় উপেক্ষা করে সিলেটের গোয়াইনঘাটের বিভিন্ন পর্যটন কেন্দ্রে প্রতিদিন ভিড় করছেন পর্যটকরা। স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষা করে পর্যটন কেন্দ্রগুলোয় অনায়াসে ঘুরে বেড়াচ্ছেন তারা। তবে অন্যান্য সময়ের তুলনায় বর্তমান সময়ে পর্যটক সমাগম অনেকটা কম।

সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, গোয়াইনঘাট উপজেলার বিছনাকান্দি, রাতারগুল ও জাফলংয়ে পর্যটকদের উপচে পড়া ভিড়।  পর্যটকদের আনন্দে যেন উৎসবের আমেজ বিরাজ করছে এসব পর্যটন স্পটে। কিন্তু কোন পর্যটকদের মুখে মাস্ক দেখা যায়নি। সামাজিক দূরত্বেরও কোন বালাই ছিলো না।   

করোনা সংক্রমণের পরিপ্রেক্ষিতে চলতি বছরের ১৮ মার্চ থেকে পর্যায়ক্রমে সিলেটের বিভিন্ন উপজেলার পর্যটন কেন্দ্রগুলোয় নিষেধাজ্ঞা জারি করে উপজেলা প্রশাসন। সেই নিষেধাজ্ঞা এখনো বলবৎ রয়েছে। বিভিন্ন দিক বিবেচনা করে গত ঈদুল আজহায় পর্যটন কেন্দ্রগুলোতে কিছুটা ছাড় দেয় স্থানীয় প্রশাসন।

বিছনাকান্দি পর্যটন কেন্দ্রে গিয়ে দেখা গেছে পর্যটকদের ভিড়। পরিবার নিয়ে এসেছেন অনেকে। বেশির ভাগই এসেছেন বন্ধুদের সঙ্গে। বন্ধুদের নিয়ে বেড়াতে আসা কলেজ ছাত্র সোহেল আহমদ। তাদের কারো মুখেই মাস্ক নেই।সামাজিক দূরত্ব বজায় না রেখেই ছবি তুলছেন, গল্প করছেন তারা। সোহেল বলেন, ঘরে থাকতে থাকতে সবকিছু একঘেয়ে হয়ে উঠেছে। তাছাড়া আজকে প্রচুর গরম। তাই এখানে একটু বাতাস খেতে এসেছি। মাস্ক মুখে না থাকলেও পকেটে আছে বলে জানান তিনি।

গোয়াইনঘাট প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি মনজুর আহমদ বলেন, ঈদুল আজহা পরবর্তী সময় থেকেই এখানে প্রচুর পর্যটক ভিড় করছেন।এতে তারা যেমন ঝুঁকিতে পড়ছেন, তেমনি আমাদের স্থানীয় এলাকাবাসীকেও ঝুঁকিতে ফেলছেন। এ মহামারীর সময় পর্যটকের মাস্ক পরা উচিত বলে মনে করেন তিনি।

গোয়াইনঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. নাজমুস সাকিব বলেন, করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলায় জনসমাগম এড়াতে গত ৩০ মার্চ জেলা প্রশাসনের নির্দেশনায় পর্যটকদের প্রবেশ নিষিদ্ধ করা হয়। ওই নির্দেশনার কারণে ঈদুল ফিতরে পুরোপুরী পর্যটকশূন্য ছিল জাফলং,বিছনাকান্দি, রাতারগুল ও পান্তুমাই। বর্তমানে বৈশ্বিক করোনা পরিস্থিতির কিছু পরিবর্তন হওয়ায় আমরা পর্যটন কেন্দ্রে যাতায়াত সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ না করে নিরুৎসাহিত করছি। এর পরেও গোয়াইনঘাট উপজেলার প্রত্যেকটি পর্যটন কেন্দ্রে মাস্ক ব্যবহার ও সামাজিক দূরত্ব বজায় না রাখায় বেশ কয়েকটি মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করেছি।   

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন