ডিপ্রেশনে হতে পারে মৃত্যুও - Sangbad Protidin | সংবাদ প্রতিদিন

ব্রেকিং নিউজ

মঙ্গলবার, ১৫ সেপ্টেম্বর, ২০২০

ডিপ্রেশনে হতে পারে মৃত্যুও


 

সংবাদ প্রতিদিন ডেস্ক 

আমরা যখনই যেকোন সমস্যার সম্মুখীন হই।সে সময়েই আমাদের চিকিৎসা সংক্রান্ত সাহায্যের খুব প্রয়োজন হয়। আপনি নিয়মিত যে চিকিৎসকের কাছে যান, তাকে দিয়েই প্রথম স্তরের চিকিৎসা শুরু করুন।

ডিপ্রেশনের লক্ষণগুলো তিনিই আপনাকে বিশদভাবে বিশ্লেষণ করবেন। প্রথম স্তরেই সুষ্ঠুভাবে চিকিৎসা করাতে না পারলে পরবর্তীতে এটি আরো বৃহদাকার ধারণ করবে। বিভিন্ন গবেষণায় বলা হয়েছে যে, দশ জন মানুষের মধ্যে গড়ে একজন ডিপ্রেশনে আক্রান্ত।

ডিপ্রেশনের লক্ষণগুলো জানা খুব জরুরি।
দুর্ভাগ্যক্রমে অনেকেই এগুলো জানেন না বলে ঠিকমতো চিকিৎসা নিতে পারেন না।

লক্ষণ
ক) কাজে মনোনিবেশ করতে সমস্যা হয়, অনেক ব্যাপার সহজে মনে রাখা যায় না এবং সিদ্ধান্ত গ্রহণে বেগ পেতে হয়।
খ) সামান্য ব্যাপারেই বেশ হতাশা এবং অপরাধবোধ হয়। নিজেকে খুব অসহায় মনে হয়।
গ) রাতে দ্রুত ঘুমাতে সমস্যা হয় এবং ঘুম থেকে উঠতেও কষ্ট হয়।
ঘ) আশেপাশের মানুষের অনেক ব্যবহার সহ্যের বাইরে চলে যায়।
ঙ) সব বিষয়ে খুব অস্থির অনুভূত হয়।
চ) হতাশা দূর করার জন্যে অতিরিক্ত খাবার প্রবণতা দেখা দেয় কিংবা একেবারে না খেয়ে থাকার অবস্থাও সৃষ্টি হয়।
ছ) শরীরের বিভিন্ন স্থানে ব্যথা, মাথা ব্যথা এবং অস্থিরতার সৃষ্টি হয় যা সহজে দূর হতে চায় না।
জ) হজমে সমস্যা দেখা দেয় যা হয়তো চিকিৎসার মাধ্যমেও দূরীভূত হয় না।
ঝ) বিভিন্ন সময়ে আত্মহননের চিন্তা মাথায় আসে। এছাড়া আরও সমস্যা থাকতে পারে অনেকেরই।

চিকিৎসা
চিকিৎসক আপনার রোগের ইতিহাস পর্যবেক্ষণ করে এবং শারীরিক পরীক্ষা নিয়ে আপনার রোগ নির্ণয় করবেন। 'ডিপ্রেশনে পরীক্ষা' বলতে কিছু করা হয়না।

ডিপ্রেশনে আক্রান্ত রোগীদের একটি সাধারণ প্রবণতা থাকে আত্মহত্যা করার। 

আত্মহননমূলক চিন্তা-ভাবনা নিঃসন্দেহে মারাত্মক। সে হিসেবে কিছু হুঁশিয়ারিমূলক সংকেত হতে পারে নিম্নের পয়েন্টগুলোঃ-      

১/ হঠাৎ করে আনন্দঘন পরিবেশ থেকে হতাশজনক পরিস্থিতিতে চলে যাওয়া।
২/ সর্বদা মৃত্যুর ব্যাপারে কথা বলা কিংবা চিন্তা করা
৩/ গভীর মনোকষ্ট, যেকোন ব্যাপারে আগ্রহ হারানো, ঘুমে এবং খাদ্যাভ্যাসে ব্যাঘাত ঘটা।
৪/ নিজেকে প্রতিটি ক্ষেত্রে অযোগ্য এবং অপদার্থ মনে করা।
৫/ আত্মহত্যার কথা মুখের বুলিতে রূপান্তর করা। প্রভৃতি ছাড়াও আরো প্রবনতা দেখা দিতে পারে।

আপনার নিজের, বন্ধু বান্ধব করোর কিংবা পরিবারের কারোর মধ্যে যদি এমন লক্ষণ দেখে থাকেন, তাহলে যতদ্রুত সম্ভব বিশেষজ্ঞের সঙ্গে যোগাযোগ করুন। মনে রাখবেন, এসব ক্ষেত্রে যত দ্রুত সম্ভব চিকিৎসা নেয়া ভালো হবে।

ডিপ্রেশন থেকে বাঁচার জন্য যা করা যেতে পারে—

*লক্ষ রাখা দরকার সব সময় যেন নৈতিকতার মাধ্যমে আনন্দে থাকা যায়।
*সুখ-দুঃখ টাকার এপিঠ আর ওপিঠ। দুটোকে মেনে নিতে হয়।
*যেখানে খুশি হারিয়ে যায় সেখান থেকে খুশির পথ খুঁজে নিতে হয়।
*চিন্তার পরিবর্তন দরকার। বিষাক্ত চিন্তা, ব্যর্থ চিন্তা, নেতিবাচক চিন্তা, অহেতুক চিন্তা, ভয়ের চিন্তা ইত্যাদি থেকে মুক্ত থাকার ব্যবস্থা নিতে হবে। তার জন্য ম্যানেজমেন্টের কথা হলো, কথা বলো, শান্ত থাক, ইতিবাচক হও, অন্যকে নয় নিজেকে বদলাও।
*আমাদের মধ্যে যেমন অনেক গুণ আছে তেমনি আবার ত্রুটিও আছে। ত্রুটিগুলোকে স্মরণ করা ও কাজে লাগানো দরকার।
*নিজের কাউন্সেলিং নিজে করা দরকার। বিশেষ করে রাতে শোয়ার আগে, সারা দিনের অ্যাকাউন্ট চেক করা এবং পরের দিন পুনরাবৃত্তি যেন না হয় তার প্রতি লক্ষ্য রেখে নতুনভাবে শুরু করা দরকার।
* দৈনিক অভ্যাসের পরিবর্তন আনা যেতে পারে।
*ভালো এবং সৎ কর্মশীল বন্ধুদের সাথে মেলামেশা এবং সময় কাটানোও হতে পারে মুক্তির উপায়।

লিখেছেনঃ-সৌরভ আহমেদ  সজীব। 


কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন