তেজপাতার দাম নেই, হতাশ চাষিরা - Sangbad Protidin | সংবাদ প্রতিদিন

ব্রেকিং নিউজ

শনিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০২০

তেজপাতার দাম নেই, হতাশ চাষিরা

মুশফাকুর রহমান, বিয়ানীবাজার প্রতিনিধি: 
একসময় বাংলাদেশের মসলার বাজারে একাধিপত্য ছিলো সিলেট অঞ্চলে উৎপাদিত তেজপাতার। যার বেশীরভাগই সংগ্রহ করা হতো বিয়ানীবাজার উপজেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে। উঁচু-নিচু টিলা বেষ্টিত এই অঞ্চলের মাটি তেজপাতা চাষের জন্য বেশ উপযোগী। প্রাকৃতিক কারণে এখানে উৎপাদিত তেজপাতা অত্যন্ত সুগন্ধযুক্ত। তাই আন্তর্জাতিক বাজারে এই জনপদের উৎপাদিত তেজপাতার ছিলো যথেষ্ট কদর।

তেজপাতা চাষের জন্য বিয়ানীবাজার উপজেলার মোল্লাপুর ও লাউতা ইউনিয়নের সবকটি গ্রাম এবং পৌরসভার সুপাতলা, নিদনপুর, খাসাড়িপাড়া, চন্দগ্রাম এলাকার মাটি বেশ উর্বর। পূর্বে এই এলাকাগুলোর প্রায় সবকটি উঁচু-নিচু টিলা, বাড়ির আঙিনা কিংবা সামান্য উঁচু পতিত জমিতে বাণিজ্যিকভাবে তেজপাতা উৎপাদন করা হতো। কিন্তু গত ৫-৬ বছর ধরে তেজপাতা চাষ থেকে নিজেদেরকে অনেকটা গুটিয়ে নিচ্ছেন এখানকার বাগান মালিকরা।

উর্বর মাটিতে তেজপাতার ভাল উৎপাদন হলেও বাজার ব্যবস্থাপনার অভাবে হোঁচট খাচ্ছে এই শিল্প। আগে তেজপাতার আবাদ করে চাষিরা লাভবান হলেও এখন দাম না পেয়ে হতাশ। তবে পারিবারিক চাহিদা মেটাতে এখানকার প্রতিটি বাড়িতে দুই-চারটি তেজপাতা গাছ এখনও চাষ করেন অনেকেই। আর তাই সম্ভাবনাময় এই শিল্প রক্ষায় সরকারের হস্তক্ষেপ চান বাগান মালিকরা।

জানা গেছে, একটি মাঝারি গাছ থেকে ২০-২৫ কেজি ও বড় গাছ থেকে ৩০-৩৫ কেজি তেজপাতা পাওয়া যায়। প্রতি কেজি তেজপাতা ১০০-১৫০ টাকায় বিক্রি হয়। স্থানীয় ব্যবসায়ীরা চাষিদের কাছ থেকে তেজপাতা কিনে নিয়ে শুকানো ও বাছাইয়ের পর বস্তায় বা বাঁশের তৈরি খাঁচায় ভর্তি করে রাখেন। পরে সিলেট ও ঢাকার পাইকাররা এ তেজপাতা কিনে নিয়ে বিভিন্ন দেশে রপ্তানি করেন। কাঁচা পাতা ১২০-১৫০ টাকা কেজিতে বিক্রি হলেও বাছাই করে ঢাকার পাইকারদের কাছে তা ২০০-২৫০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়। 
এছাড়া খুচরা বাজারে প্রতি আঁটি তেজপাতা ২০-৪০ টাকা করে বিক্রি হয়। এক আঁটিতে পাতাভর্তি ছোট দুটি ডাল থাকে। মৌসুমে একেকটি গাছ থেকে ২০০-২৫০ আঁটি তেজপাতা পাওয়া যায়।

তেজপাতা ব্যবসায়ীদের অভিযোগ, বাংলাদেশে যে পরিমাণ তেজপাতা উৎপাদন হচ্ছে তা দিয়ে দেশের চাহিদা পূরণ করে বিদেশেও রপ্তানি করা সম্ভব। তবুও বিদেশ থেকে কম মূল্যে তেজপাতা আমদানি করা হচ্ছে। পাশাপাশি নানা ধরনের জটিলতার কারণে বাগান ক্রয় বন্ধ করে দিয়েছেন অনেক ব্যবসায়ীরা।

ন্যায্যমূল্য নিশ্চিত করতে দেশীয় বাজারে তেজপাতা সরাসরি বিক্রির মাধ্যম চালু করা প্রয়োজন বলে মনে করেন বিয়ানীবাজার উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোহাম্মদ আনিছুজ্জামান। তিনি জানান, বিয়ানীবাজার উপজেলার মাটি ও আবহাওয়া তেজপাতা চাষের উপযোগী। সে কারণে তেজপাতা চাষে এখানকার কৃষকদের উদ্বুদ্ধ করা হচ্ছে। চাষিদের একত্রিত করে শুকনো পাতা প্যাকেটজাতের মাধ্যমে তেজপাতার বাণিজ্যিকভাবে বিপণন সম্ভব বলেও মনে করেন তিনি।

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন