মোবাইল এ্যাপ থেকেই ফ্রিল্যান্সিং প্রশিক্ষণ নিয়ে আয়-বাংলাদেশে এই প্রথম - Sangbad Protidin | সংবাদ প্রতিদিন

ব্রেকিং নিউজ

সোমবার, ১০ আগস্ট, ২০২০

মোবাইল এ্যাপ থেকেই ফ্রিল্যান্সিং প্রশিক্ষণ নিয়ে আয়-বাংলাদেশে এই প্রথম

পটুয়াখালী প্রতিনিধিঃ 

একটা সময় ছিল যখন ভালো একটা চাকরির প্রতি মানুষের মোহ কাজ করতো। সময় বদলেছে, অনলাইন দুনিয়ায় বিনোদনের পাশপাশি পড়াশোনা ও নিত্য প্রয়োজনীয় সামগ্রী সহজলভ্য হয়ে উঠেছে। তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির সম্প্রসারণের ফলে মানুষ মুক্তপেশা বা অনলাইনে চাকরিও করছে হরদম। আপন ঘরে বসেই এখন মানুষ তার পেশাতে বৈপ্লবিক পরিবর্তন আনতে সক্ষম হয়েছে যে পদ্ধতির বদৌলতে, আমরা প্রায় সবাই তার নাম জানি-ফ্রিল্যান্সিং। এই পেশাতে নেই বয়স, লিঙ্গ, জাতি, ধর্মের বালাই, নেই ইউনিফর্ম বা ড্রেস পড়ার কোন ঝামেলা। তাই উঠতি বয়সের তরুণ-তরুণী থেকে শুরু করে মধ্যবয়স্ক কিংবা গৃহিণী-কে নেই এই পেশায়?

বহির্বিশ্বের তুলনায় বাংলাদেশেও ফ্রিল্যান্সিং-এর প্রসার ঘটেছে ব্যাপক। অনলাইন পেমেন্ট গেটওয়ে প্রতিষ্ঠান পেওনিয়ার কর্তৃক ২০১৯ গ্লোবাল গিগ-ইকনোমি ইনডেক্সে বিশ্বের ফ্রিল্যান্স মার্কেটের ঝোঁক প্রকাশে সেরা দশটি দেশের তালিকায় ৬ লক্ষাধিক ফ্রিল্যান্সারের বাংলাদেশ ৮ নম্বর অবস্থানে স্থান পেয়েছে। তালিকায় যুক্তরাষ্ট্র ১ নম্বরে ও সার্বিয়া রয়েছে ১০ নম্বরে। বালাদেশ সেখানে ভারতের চাইতে মাত্র ২% কম মাত্রা নিয়ে সারা বিশ্বের তুলনায় ২৯% ইয়ার রেভিনিউ বা বাৎসরিক আয় সক্ষমতা আনতে সক্ষম হয়েছে।

বর্তমানে বাংলাদেশে ৬ লক্ষাধিক ফ্রিল্যান্সার রয়েছে যাদের মধ্যে ২ লক্ষ এ্যাকটিভ ফ্রিল্যান্সার হিসাব করলে তাদের মাথাপিছু মাসিক গড় আয় রয়েছে ৬০ মার্কিন ডলার। অর্থাৎ প্রতি মাসে বাংলাদেশে ফ্রিল্যান্সারদের গড় আয় ১২ মিলিয়ন ডলার এবং টাকার মূল্যমানে ৯৯ কোটি ৬০ লক্ষ [আনুমানিক]। এদের জন্য ওয়েবসাইট বা লাইভভিত্তিক অনলাইন প্রতিষ্ঠান থাকলেও মোবাইলভিত্তিক কোন প্লাটফর্ম বা কোন এ্যাপ নেই যার দ্বারা একজন শিক্ষার্থী বা ফ্রিল্যান্সার ফ্রি-তে প্রশিক্ষণ নিতে পারেন। তাই এই দৃষ্টিকোণ থেকে তানজিল একাডেমির সিইও এবং উদ্যোক্তা জনাব তানজিল Career School (ক্যারিয়ার স্কুল) নামে একটি মোবাইল এ্যাপের সূচনা করেছেন যাতে ফ্রিল্যান্সাররা খুব সহজে ট্রেনিং পেতে পারে। 

এ প্রসঙ্গে ক্যারিয়ার স্কুলের হেড অব কমিউনিকেশন্স, জনাব আলমগীর হোসেন-এর সঙ্গে যোগাযোগ করে তাদের এই ব্যাতিক্রমধর্মী উদ্যোগের কথা জানতে চাইলে তিনি বলেন, “অনেকেরই ব্যাক্তিগত, সাংসারিক বা অফিসিয়াল কাজ সেরে একটা নির্দিষ্ট সময়ে ট্রেনিং গ্রহণ করতে সমস্যা পোহাতে হয়। আবার সবার মেধা ও স্মৃতির ধারণ ক্ষমতা এক নয়। বিভিন্ন অভিজ্ঞতা ও শিক্ষার্থীরা তাই যাতে তাদের সুবিধামত সময়ে কোর্স করে সাবলম্বী হতে পারে সেই পরিপ্রেক্ষিতে এই এ্যাপের সূচনা”।

গুগল প্লে স্টোরে এটি পাওয়া যাচ্ছে বিনামূল্যে। এ্যাপটি ডাউনলোড করতে প্লে স্টোরে সার্চ করুন Career School লিখে অথবা, প্রবেশ করুন এই লিংকেঃ https://play.google.com/store/apps/details?id=com.maxecho.careerschool

প্রতিদিন মার্কেটপ্লেসের বিভিন্ন ট্রেন্ডিং বিষয়ের উপর লেসন যুক্ত হচ্ছে এই অ্যাপে যা ব্যবহারকারীর হ্যান্ডসেটে স্বয়ংক্রিয়ভাবে নোটিফিকেশন আকারে জানিয়ে দেয়। রয়েছে গ্র্রুপ সাপোর্ট ও পর্যাপ্ত রিসোর্স।
 
সর্বোপরি বেকারত্ব দূর ও দেশের মানুষকে স্বাধীন বা মুক্ত পেশায় স্বাবলম্বী করে গড়ে তোলার ক্ষেত্রে ক্যারিয়ার স্কুলের এই উদ্যোগ প্রশংসনীয়।:

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন