সিলেটে জঙ্গি নাইমুজ্জামান অনলাইনে বোমা তৈরির প্রশিক্ষণ দিতো - Sangbad Protidin | সংবাদ প্রতিদিন

ব্রেকিং নিউজ

সোমবার, ২৪ আগস্ট, ২০২০

সিলেটে জঙ্গি নাইমুজ্জামান অনলাইনে বোমা তৈরির প্রশিক্ষণ দিতো


সিলেট প্রতিনিধি:
জঙ্গিদের সদস্য সংগ্রহ থেকে শুরু করে প্রোপাগান্ডা প্রচার, যোগাযোগ ও প্রশিক্ষণ সবই চলছে অনলাইনে। আগে শুধু যোগাযোগের জন্য অনলাইন ব্যবহার করা হলেও প্রশিক্ষণ হতো হাতে-কলমে। কিন্তু আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর চোখ ফাঁকি দিতে জঙ্গিরা এখন প্রশিক্ষণও দিচ্ছে অনলাইনে।

এমনকি বোমা তৈরির ম্যানুয়াল তৈরি করে তা পাঠিয়ে দেওয়া হচ্ছে সামরিক শাখার সদস্যদের কাছে। এছাড়া অন্যান্য শারীরিক ব্যায়ামসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে ফাঁকি দেওয়ার কৌশলসহ সবকিছুরই প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে অনলাইনে। নিজেরাই টার্গেট ফিক্সড করে সিঙ্গেল অ্যাটাকের পরিকল্পনা করছে জঙ্গিরা।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ধারাবাহিক অভিযানের কারণে জঙ্গিরা এখন পুরোপুরি অনলাইনে নির্ভরশীল হয়ে পড়েছে। এজন্য অনলাইনে আগের চাইতে নজরদারি বাড়ানো হয়েছে।

কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের কর্মকর্তারা বলছেন, সিলেট থেকে যে পাঁচ জঙ্গিকে গ্রেফতার করেছেন, তারা প্রত্যেকেই অনলাইনের মাধ্যমে নব্য জেএমবিতে যুক্ত হয়েছিলেন। এদের সেল প্রধান নাইমুজ্জামান অন্য সদস্যদের অনলাইনের মাধ্যমে সদস্য সংগ্রহের পাশাপাশি বোমা তৈরির প্রশিক্ষণ দিতো। অনলাইনের মাধ্যমে প্রশিক্ষণ নিয়ে ঢাকার পল্টন, নওগাঁর একটি মন্দিরে বোমা বিস্ফোরণ ঘটিয়েছিল তারা। এছাড়া সিলেটের শাহজালালের মাজারেও বোমা মেরেছিল। কিন্তু ‘কাঁচা হাতের তৈরি’ বলে সেই বোমাটি বিস্ফোরিত হয়নি।


কাউন্টার টেরোরিজম কর্মকর্তারা বলছেন, হামলায় অংশ নিতে অনলাইনে প্রশিক্ষণ বা বোমা তৈরির কৌশল শেখানোর বিষয়টি কিছুটা শঙ্কার। জঙ্গিরা গ্রেফতারের ঝুঁকি এড়াতে অনলাইন কৌশল বেছে নিয়েছে। যাতে যে কোনও জঙ্গি নিজের ঘরে বসেই বোমা তৈরি করতে পারে। একারণে অনলাইনেও ব্যাপকহারে নজরদারি বাড়ানো হয়েছে। যেসব সাইটে জঙ্গিবাদের উপকরণ রয়েছে সেগুলো চিহ্নিত করে এগুলোর পরিচালনার সঙ্গে যারা যুক্ত রয়েছে তাদের আইনের আওতায় আনার চেষ্টা চলছে।

কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের উপ-কমিশনার মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম বলেন, ‘জঙ্গিরা রিক্রুটমেন্ট থেকে শুরু করে প্রশিক্ষণের বিষয়গুলোও এখন অনলাইনের মাধ্যমে করছে। আমরাও জঙ্গিবাদ প্রতিরোধে প্রথাগত সোর্স ব্যবহারের পাশাপাশি অনলাইনে নজরদারি বাড়িয়েছি। প্রযুক্তির সহযোগিতায় জঙ্গিদের অনলাইনের কার্যক্রম মনিটরিং করে তাদের আইনের আওতায় আনার চেষ্টা চলছে।’

কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের একজন কর্মকর্তা বলেন, অনলাইনে প্রোপাগান্ডা ছড়ানো অনেক অনেক ওয়েবসাইট বন্ধ করা হয়েছে, অনেককেই গ্রেফতার করা হয়েছে। অন্যান্য অ্যাপসভিত্তিক জঙ্গিদের যে যোগাযোগ সেসবও বিভিন্ন সময়ে বন্ধ করা হয়েছে। কিন্তু একটি বন্ধ করা হলেই আরেকটি নতুন ওয়েবসাইট বা গ্রুপ খুলে সেখানে প্রচারণা বা প্রোপাগান্ডা চালায় জঙ্গিরা।


বিশ্লেষকরা বলছেন, ইন্টারনেট দুনিয়ায় শুধু ওয়েবসাইট বন্ধ করে কোনও কিছু প্রতিরোধ করা সম্ভব নয়। একদিকে যেমন অনলাইনে নজরদারি বাড়াতে হবে তেমনি জঙ্গিবাদের কাউন্টার ন্যারেটিভ প্রচার-প্রচারণা বাড়াতে হবে। তরুণদের প্রতি বিশেষ নজর রাখতে হবে যাতে কেউ ভ্রান্ত মতাদর্শের ফাঁদে না পড়ে। এজন্য সামাজিক ও পারিবারিকভাবেও সবাইকে সচেতন হতে হবে।

পুলিশের একটি সূত্র জানায়, গ্রেফতারকৃত ৫ জনের মধ্যে নাইমুজ্জামান সিলেট জেএমবির আঞ্চলিক কমান্ডার হিসেবে কাজ করে আসছিল। সিলেট অঞ্চলে জঙ্গিদের সংগঠিত করা, তাদের প্রশিক্ষণ এবং জঙ্গিবাদে উদ্বুদ্ধ করার মূল দায়িত্ব নাইমুজ্জামান পালন করত।

গ্রেফতার হওয়া নাইমুজ্জামান পুলিশকে জানিয়েছে, তাদের সিলেট শাহজালাল মাজারে হামলার পরিকল্পনা ছিল। বড় ধরনের হামলার পরিকল্পনা নিয়ে তারা ইতোমধ্যে প্রস্তুতিও নিয়ে রেখেছিল। ওই হামলা কখন হবে, কীভাবে করা হবে এর জন্য তাদের অপারেশনাল টিমও নির্ধারণ করা হয়েছিল।

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন