ঠাকুরগাঁওয়ে ইজিবাইকে চাঁদাবাজি বছরে ৩ কোটি টাকা চাঁদা আদায় - Sangbad Protidin | সংবাদ প্রতিদিন

ব্রেকিং নিউজ

বুধবার, ২২ নভেম্বর, ২০১৭

ঠাকুরগাঁওয়ে ইজিবাইকে চাঁদাবাজি বছরে ৩ কোটি টাকা চাঁদা আদায়

নিজস্ব প্রতিবেদনঃঠাকগাঁওয়ে ইজিবাইকে (ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা) বেপরোয়া চাঁদাবাজি চলছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। চাঁদাবাজেরা মোটর পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়ন ও স্ট্যান্ড সমিতির নামে জেলার ১০টি জায়গায় লাঠি হাতে দাঁড়িয়ে চাঁদা আদায় করছে। ইজিবাইকের চালকদের কাছ থেকে চাঁদা আদায়ের প্রতিবাদে গতকাল সোমবার শহরে বিক্ষোভ মিছিল করে জেলা প্রশাসককে স্মারকলিপি দিয়েছে অটো শ্রমিক অধিকার আন্দোলন নামের একটি সংগঠন।
শহরের কলেজপাড়া এলাকার ইজিবাইকের চালক ফারুক হোসেন বলেন, জেলার ১০টি জায়গায় ইজিবাইকের চালকদের কাছ থেকে ৫ টাকা থেকে শুরু করে ১০ টাকা পর্যন্ত চাঁদা নেওয়া হচ্ছে। তিনি অভিযোগ করেন, সমিতির নামে চাঁদা আদায় করা হলেও প্রয়োজনে তাদের পাওয়া যায় না।
ছয়টি জায়গা ঘুরে ইজিবাইকের চালকের এই বক্তব্যের প্রমাণ মিলেছে। জেলার সদর উপজেলার ঠাকুরগাঁও রোড, ভুল্লি, রুহিয়া, বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার চৌরাস্তা, রানীশংকৈলের নেকমরদ, শীবদিঘি, পীরগঞ্জের লোহাগাড়া ঘুরে ইজিবাইক থেকে চাঁদা আদায়ের দৃশ্য দেখা গেছে। চাঁদা নিয়ে আদায়কারীদের কোনো রাখঢাক নেই। সব হচ্ছে প্রকাশ্যে। ইজিবাইক আসতে দেখলেই চাঁদা আদায়কারীরা লাঠি দিয়ে তা থামানোর চেষ্টা করে। অধিকাংশ চালক ঝামেলা এড়াতে চাঁদা দিয়ে চলে যান।
এই টাকা দিয়ে কী হয়, কোথায় যায়? জানতে চাইলে ইজিবাইকের চালক মোহাম্মদ লাবু বলেন, ‘কোথায় যায়, আমরা জানি না।’
ঠাকুরগাঁও রোড এলাকার আরেক ইজিবাইকের চালক মো. শহাজাহান আলী বলেন, ‘এক স্ট্যান্ডে চাঁদা দিয়ে অন্য স্ট্যান্ডে গেলে সেখানেও আমাদের চাঁদা দিতে হয়। এভাবে একজন চালককে প্রতিদিন ২০ থেকে ৪০ টাকা পর্যন্ত চাঁদা দিতে হয়।’ সদর উপজেলার ভুল্লি এলাকার চালক রহমত আলী, নেকমরদ এলাকার চালক মোহাম্মদ আলী একই রকম কথা বলেন।
আটো শ্রমিক অধিকার আন্দোলনের উপদেষ্টা মাহবুব আলম বলেন, ঠাকুরগাঁও জেলায় কমপক্ষে ১৮ হাজার ইজিবাইক চলাচল করে। এসব ইজিবাইকের মধ্যে প্রতিদিন অন্তত নয় হাজার ইজিবাইকের চালককে চাঁদাবাজদের হয়রানির শিকার হতে হয়। প্রতিটি ইজিবাইকের চালককে প্রতিদিন ন্যূনতম চাঁদা দিতে হয় ১০ টাকা করে। সে ক্ষেত্রে প্রতিদিন আদায় করা হচ্ছে ৯০ হাজার টাকা। আর প্রতি মাসে ইজিবাইক থেকে আদায় করা হয় অন্তত ২৭ লাখ টাকা। এ হিসাবে বছরে জেলার ইজিবাইকের চালকদের কাছ থেকে আদায় করা হচ্ছে ৩ কোটি ২৪ লাখ টাকা। এ ছাড়া ইজিবাইক মালিক সমিতি বিভিন্ন উৎসবে, স্ট্যান্ড সমিতি চেইনের নামে বিভিন্ন অঙ্কের চাঁদা আদায় করে।
এ বিষয়ে জেলা ইজিবাইক মালিক ও শ্রমিক কল্যাণ সোসাইটির সভাপতি মো. সাইফুল ইসলাম বলেন, ইজিবাইক মালিক সমিতি জেলার কোথাও চালকদের কাছ থেকে চাঁদা আদায় করে না। মোটর পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের লোকজন এ চাঁদা আদায় করছে।
জেলা মোটর পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক আবদুল জব্বার বলেন, ‘ইজিবাইক থেকে মোটর পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়ন চাঁদা আদায় করছে, এ খবর আমার জানা নেই।’ ঠাকুরগাঁও থানার ওসি আবদুল লতিফ বলেন, এ ধরনের কোনো অভিযোগ পাইনি। গতকাল সোমবার দুপুরে ঠাকুরগাঁওয়ে ইজিবাইকের চালকদের কাছ থেকে চাঁদা আদায় বন্ধ, ইজিবাইক নবায়ন ফি ৩০০ টাকা নির্ধারণ করার দাবিতে অটো শ্রমিক অধিকার আন্দোলন শহরে বিক্ষোভ মিছিল করে। পরে সংগঠনটি জেলা প্রশাসক বরাবর স্মারকলিপি দেয়। জানতে চাইলে জেলা প্রশাসক মো. আবদুল আওয়াল বলেন, ‘দাপ্তরিক কাজে আমি রংপুরে ছিলাম। স্মারকলিপিটি দেখে পরবর্তী পদক্ষেপ নেব

1 টি মন্তব্য: